সানগ্লাস কেনার আগে যা জানা উচিত এবং এটা ব্যবহারের নিয়ম

সানগ্লাস কেনার আগে যা জানা উচিত এবং এটা ব্যবহারের নিয়ম

মেয়েদের সানগ্লাস ছেলেদের সানগ্লাস
Spread the love

সানগ্লাস কেন প্রয়োজন?

ফ্যাশন বলুন বা প্রয়োজন বলুন ‘সানগ্লাস‘ একটি অতীব জরুরি একটি জিনিস। অনেকে ফ্যাশন হিসেবে এটা ব্যবহার করেন, আবার অনেকে প্রয়োজনে।

তবে এটা সত্য যে এটা শুধু ফ্যাশনই নয়, একইসাথে চোখের জন্য ভালো। গরমে কড়া রোদে যান বা শীতকালের নরম রোদে যান সানগ্লাস আপনাকে যথেষ্ট প্রটেকশন দিবে।

এখন আমাকে আপনি প্রশ্ন করতেই পারেন যে গরমকালে প্রচন্ড রোদ থেকে বাঁচতে এই জিনিসটি প্রয়োজন, কিন্তু শীতকালে কেন প্রয়োজন হতে পারে?

সানগ্লাস
সানগ্লাস

শীতকালে আপনি বা আমি সবাই জানি সবকিছু শুষ্ক থাকার ফলে প্রচুর ধূলাবালি হয় যেটা চোখের জন্য ক্ষতিকর।

তাই গ্রীষ্মকাল ছাড়াও বছরের প্রত্যেকটা সময় সানগ্লাস একটি প্রয়োজনীয় জিনিস। প্রচন্ড ধূলাবালি, বিভিন্ন ব্যাকটেরিয়া, সূর্যের ক্ষতিকর ইউভি রশ্নি চোখের জন্য খুব খারাপ। তাই সানগ্লাসের প্রয়োজনীয়তা অনেক।

সূর্যের অতিবেগুনী রশ্মি সব বয়সের মানুষের চোখের জন্যই ক্ষতিকর। চোখের কর্ণিয়া ও রেটিনার জন্য এই রশ্মি ক্ষতিকর। সরাসরি সূর্যের আলো চোখে পড়লে মাইগ্রেনের সমস্যাও হতে পারে।

আবার দেখা যায় যে রোদে বের হলে আমাদের চোখ কুচকে তাকাতে হয়। এতে চোখের পাশের পাতলা চামড়ায় ভাঁজ পড়ে যায়। সানগ্লাসের প্রয়োজনীয়তা বুঝতেই পারছেন।

তরুণ-তরণীদের মধ্যে সানগ্লাসের জনপ্রিয়তা এমনিতেই বেশি। সবার চেহারা এক নয়। তাই বুঝেশুনে সানগ্লাস কেনা উচিত। সেটা নিয়ে পরের টপিকেই কথা হবে।

কার জন্য কেমন সানগ্লাস প্রয়োজন?

যেনতেন সানগ্লাস কিনে নিলে হবেনা। আপনার চেহারা বা পরিস্থিতি এসব বিবেচনায় এটা কিনতে হবে। এখনকার সময়ে অনেক কালারফুল সানগ্লাসের জনপ্রিয়তা বেড়েছে।

তবে আমার সাজেশন্স থাকবে ট্রেন্ডের দিকে ফোকাস না করে আপনার চেহারার সাথে যেটা মানানসই সেটা কিনবেন।

যাদের শরীরের কালার ফর্সা বা উজ্জ্বল তাদের জন্য বাদামি, কালো, নীল, সবুজ প্রায় সব কালারের ফ্রেমই মানিয়ে যাবে। এসব ছাড়াও অন্যান্য যেকোনো ফ্রেমে বা গ্লাসে মানিয়ে যাবে।

ত্বক কালো বা শ্যামলা যাদের তাদের সাথে কালো, কফি কালার, একটু গাঢ় বা হালকা বাদামী কালারের ফ্রেম খুব ভালো মানাবে।

যাদের চেহারা একটু হার্ট শেপ তাদের কপাল চওড়া আর চোয়াল সরু হয়ে থাকে। তাদের জন্য ক্যাট আই বা স্পোর্কি সানগ্লাসগুলো পারফেক্ট।

বিচ সানগ্লাস
বিচে ঘুরতে গেলে এমন সানগ্লাস পারফেক্ট

ডিম্বাকৃতির চেহারায় আসলে সব ধরনের সানগ্লাসই ম্যাচ করে। তবে কোণযুক্ত এবং আয়তাকার ফ্রেমের চশমা বেশ মানিয়ে যাবে। সুন্দর লাগবে বেশি।

এখন বলবো বর্গাকৃতির চেহারা যাদের তাদের জন্য ছোট্ট সাজেশন্স। এমন চেহারার সাথে গ্লাসের নিচের অংশ রিমলেস হলে সুন্দর লাগবে অথবা মেটালিক ফ্রেমের গ্লাস মানায়।

তবে একটা ব্যাপার খেয়াল রাখতে হবে যেন চশমার ফ্রেম যেন বেশি ছোট না হয়ে যায়। লম্বা মুখের সাথে গোলগাল চশমা ভালো মানায়।

চতুর্ভুজ আকৃতির চেহারার সাথে একটু বড় সানগ্লাস মানিয়ে যাবে। এরকম মুখে ক্যাটস আই স্টাইলের চশমা খুব সুন্দর মানিয়ে যাবে।

সাধারণ এবং ব্রান্ডের সানগ্লাসের পার্থক্য

সাধারণ সানগ্লাসব্রান্ডেড সানগ্লাস
এগুলোর ফ্রেম খুব দুর্বল হয়।এগুলোর ফ্রেম খুব ভালো হয়।
এই চশমাতে ইউভি ৪০০ নাও থাকতে পারে।এগুলোতে ইউভি ৪০০ ব্যবহার করা হয়।
ফ্যাশনেবল নাও হতে পারে।ফ্যাশনেবল হয়।
বাজে কোয়ালিটির প্রোডাক্ট।ভালো কোয়ালিটি।
মুখের শেইপের সাথে খাপ না খাওয়ার সম্ভাবনা বেশি।এগুলো সহজে খাপ খেয়ে যায়।
দাম কম। কোয়ালিটিও দুর্বল।
তবে কিছু ক্ষেত্রে ভালো কোয়ালিটি পাবেন।
কমদামে ভালো চশমা নিয়ে আমাদের লেখা পড়তে পারেন।
দাম যেমন বেশি, কোয়ালিটিও চমৎকার।
এটা নিয়ে কোনো সন্দেহ নাই।
সাধারণ এবং ব্রান্ডের সানগ্লাসের পার্থক্য

কেমন সানগ্লাস কিনবেন?

সানগ্লাস কেনার আগে নিম্নোক্ত ব্যাপারগুলো দেখে তারপর কিনবেন,

  • ইউভি-৪০০ যুক্ত সানগ্লাস কিনবেন। কারণ সূর্যের ক্ষতিকর রশ্মি থেকে বাঁচতে এটা প্রয়োজন।
  • ব্রান্ডের প্রোডাক্ট কিনলে প্যাকেটের গায়ে এটা সম্পর্কে সব লেখা পাবেন। কিন্তু সাধারণ চশমা কিনলে সেই সুবিধা নাও পেতে পারেন।
  • বেড়াতে যান বা ড্রাইভিং করেন তাদের জন্য পোলারাইজড লেন্স ভালো হবে।
  • র‍্যাপ এরাউন্ড সানগ্লাস তাদের জন্য প্রয়োজন যারা বেশি সময় বাইরে থাকেন।
  • চশমা কিনে নেয়ার পর একটু আশেপাশে দেখে চশমার অবস্থা বুঝে নিবেন। কোনো ইমেজ ডিসটিশন হচ্ছে কিনা তা দেখে নিবেন।
  • আর হ্যাঁ, যাদের এলার্জির সমস্যা আছে তারা স্টেইনলেস স্টিল ফ্রেমের চশমা পড়তে পারেন।
  • যারা পাওয়ার চশমা ব্যবহার করেন তারা প্রেসক্রিপশন সানগ্লাস ব্যবহার করতে পারেন। একদিকে পাওয়ার চশমার কাজ হবে, অন্যদিকে ফ্যাশনও হয়ে যাবে।
  • বিভিন্ন ব্রান্ড হলো গুচি(GUCCI), প্রাডা(PRADA), বোত্তেগা ভেনেতা(BOTTEGA VENETA), রে-ব্যান(RAY BAN), অ্যাকনি স্টুডিওজ(ACNE STUDIOS) ইত্যাদি।

সানগ্লাস ব্যবহারের কিছু নিয়ম কানুন জেনে রাখুন

শুধু কিনলেই হবেনা, সানগ্লাস ব্যবহারের কিছু নিয়ম কানুন আপনার মেনে চলা উচিত। সেগুলো নিয়ে নিচে আলোচনা করলাম।

চেষ্টা করবেন নিম্নোক্ত নিয়মগুলো মানতে।

কারো সাথে কথা বলার সময় সানগ্লাস খুলে রাখুন

যখন কারো সাথে সামনাসামনি কথা বলবেন চেষ্টা করবেন রোদচশমা খুলে রাখার। এটা চোখে রেখে কারো সাথে কথা বলবেন না। এটা সুন্দর দেখাবেনা।

কারণ মানুষ চোখে চোখ রেখে কথা বলতে পছন্দ করে। তাই কারো সাথে কথা বলার সময় চোখ ঢাকা থাকলে অসৌজন্যতা প্রকাশ পায়।

পারফেক্ট শেড বাছাই করতে হবে

অফিসিয়াল কোনো ট্যুর আর বন্ধুবান্ধবের সাথে ট্যুরে একই সানগ্লাস ব্যবহার করাটা ভালো দেখাবেনা। তাই সেই মোতাবেক কিনবেন।

অফিসের ক্ষেত্রে কিনলে এক কালারের কিনবেন। জমকালো বা কালারফুল এক্ষেত্রে ভালো লাগবেনা। আর বন্ধুবান্ধবের সাথে ট্যুরে গেলে চোখে যা ভালো লাগবে তাই কিনতে পারেন।

আয়না হিসেবে আরেকজনের চশমা ব্যবহার করবেন না

অনেকেরই এই স্বভাব আছে। আরেকজনের চশমা একটু গ্লাস রিফ্লেকশন থাকলেই নিজের চেহারা দেখতে ইচ্ছে করে। এটা আসলে চশমার ব্যবহারকারীকে লজ্জ্বিত করে।

উনি হয় সেটা অপছন্দ করতে পারেন, নতুবা বিব্রত বোধ করতে পারেন। তাই এ ব্যাপারটা একটু খেয়াল রাখবেন।

শুধুমাত্র বাহিরে থাকাকালীন সময়ে ব্যবহার করুন

ঘরে বা মার্কেটে বা যেখানে রোদ নেই সেখানে চশমা খুলে রাখাটা ভালো। অনেকে নিজেকে একটু স্মার্ট দেখাতে যেয়ে এই ভুলটা করেন।

কিন্তু রোদ ছাড়া সানগ্লাস লাগিয়ে রাখাটা খাপ খায়না পরিবেশের সাথে। আশেপাশের অনেকে আবার এই ব্যাপারটা পছন্দ করেন না।

সানগ্লাসটি সবসময় মাথায় রাখবেন না

অনেকে চশমা মাথায় রাখতে পছন্দ করেন। এটা বাজে স্বভাব। যতটুকু পারেন এই স্বভাবটা পরিত্যাগ করুন।

রোদচশমার মাথায় লাগিয়ে রাখার জিনিস না। তাই প্রয়োজনে চোখে রাখুন, নাহলে হাতে রাখুন। মাঝেমাঝে মাথায় রাখতে পারেন।

সানগ্লাসের মূখ্য উদ্দেশ্য ফ্যাশন নয়। তাই সেটা চোখে রাখুন। চোখকে রক্ষা করুন রোদ এবং ধুলাবালি থেকে।

ফিমেল সানগ্লাস
ফিমেল সানগ্লাস

যাহোক, লেখা আর বড় করতে চাচ্ছিনা। পরবর্তী কোনো লেখা নিয়ে হাজির হবো। ভালো থাকবেন।

জেনে কিনবো‘তে আমার ব্যক্তিগত পছন্দের কিছু সানগ্লাস সাজেস্ট করলাম। দেখুন ভালো লাগে কিনা। আর মেয়েদের জন্যও কিছু সানগ্লাস দেখতে পারেন এখানে

2 thoughts on “সানগ্লাস কেনার আগে যা জানা উচিত এবং এটা ব্যবহারের নিয়ম

Leave a Reply

Your email address will not be published.