Walton Laptop

ওয়ালটন ল্যাপটপ টামারিন্ড এক্স৭১০জি (Walton Laptop Tamarind EX710G) রিভিউ

ইলেকট্রনিক পণ্য কম্পিউটার
Spread the love

ওয়ালটন ল্যাপটপ (Walton Laptop)

ওয়ালটন ল্যাপটপ (Walton Laptop) বর্তমানে অনেক পপুলার ল্যাপটপ। তারা বাংলাদেশী কোম্পানি হিসেবে অনেক নতুন নতুন চমক নিয়ে এসেছে। যার মধ্যে একটি হলো তাদের ওয়ালটন ল্যাপটপ (Walton Laptop) সিরিজ। এগুলোর ডিজাইন যেমন ভালো তেমনি দামও সাধ্যের মধ্যে। আশা করা যায় মার্কেটে ওয়ালটন ল্যাপটপ (Walton Laptop) আরো বড় ধরনের প্রভাব ফেলতে পারবে ভবিষ্যতে।

আজকের এই লেখায় ওয়ালটন ল্যাপটপ (Walton Laptop) সিরিজের একটি ল্যাপটপ নিয়ে আলোচনা করবো। এর কনফিগারেশন বলার সাথে সাথে ভালো-মন্দ নিয়ে মতামত দিবো। আশা করি ওয়ালটন ল্যাপটপ (Walton Laptop) এর এই প্রোডাক্টটি কেনার ক্ষেত্রে আমাদের লেখাটি আপনাকে সহযোগীতা করবে।

ওয়ালটন ল্যাপটপ টামারিন্ড এক্স৭১০জি (Walton Laptop Tamarind EX710G) রিভিউ

ওয়ালটন ল্যাপটপ টামারিন্ড এক্স৭১০জি (Walton Laptop Tamarind EX710G)-টি চমৎকার একটি ল্যাপটপ। আমরা চেষ্টা করবো এই এক লেখায় এর খুঁটিনাটি যেন আপনাদেরকে বলতে পারি। এর সাথে আমাদের মতামত আপনাকে সিদ্ধান্ত নিতে সহযোগীতা করবে আশা করি। 

best walton laptop

আমাদের এই লেখায় ওয়ালটন ল্যাপটপ টামারিন্ড এক্স৭১০জি (Walton Laptop Tamarind EX710G) এর যে সেকশনগুলো নিয়ে আলোচনা করবো সেগুলো হলো,

  • ডিজাইন
  • প্রসেসর
  • পারফরমেন্স (র‍্যাম, এসএসডি, হার্ডডিস্ক)
  • ডিসপ্লে
  • কানেক্টিভিটি সেকশন
  • কিবোর্ড

এই সেকশনগুলো ছাড়াও আরো দুইটা বিষয় থাকবে। সেগুলো হলো আমাদের ‘জেনে কিনবো’ টিমের মতামত এবং অন্যান্য কাস্টমারদের ফিডব্যাক।

ওয়ালটন ল্যাপটপ টামারিন্ড এক্স৭১০জি (Walton Laptop Tamarind EX710G)-এর ডিজাইন

ওয়ালটন ল্যাপটপ টামারিন্ড এক্স৭১০জি (Walton Laptop Tamarind EX710G)-এর ডিজাইন খুব চমৎকার। এই ল্যাপটপটি মেটালিক এবং স্লিম। মেটালিক এবং স্লিম হবার কারণে দেখতেও খুব স্টাইলিশ এবং প্রিমিয়াম ফিল দেয়।

এই ল্যাপটপের পুরোটাতেই মেটালিক ফিনিশ দেয়া হয়েছে। আর ল্যাপটপের ওজনও মোটামুটি কম। মাত্র ১ কেজি ৪০ গ্রাম। অর্থাৎ প্রায় দেড় কেজি। তাই ল্যাপটপ ক্যারি করতে আপনাদের অসুবিধা হবার কথা না।

প্রসেসর

ওয়ালটন ল্যাপটপ টামারিন্ড এক্স৭১০জি (Walton Laptop Tamarind EX710G)-এ ব্যবহার করা হয়েছে ইন্টেল কোর আই-৭ এর ১০ম জেনারেশন (৪.৯ গিগাহার্জ পর্যন্ত)। প্রসেসর হিসাবে দূর্দান্ত হয়েছে। তারমধ্যে প্রসেসর ১৪ ন্যানোমিটারের হওয়ায় খুব ভালো পারফর্মেন্স দিবে। 

এতে ৮ এমবি স্মার্ট ক্যাশ ব্যবহার করা হয়েছে। এই ল্যাপটপের স্পিড চমৎকার। এতে আপনি গ্রাফিকসের প্রয়োজনীয় কাজ করতে পারবেন। মাল্টিটাস্কিং-এও দূর্দান্ত পারফরমেন্স দিবে।

পারফর্মেন্স

এতে ব্যবহার করা হয়েছে ৮ জিবি ডিডিআর ৪ র‍্যাম। তবে আপনি চাইলে ৩২ জিবি পর্যন্ত এক্সপান্ড (বাড়াতে) করতে পারবেন। এতে আরো ব্যবহার করা হয়েছে ৫১২ জিবি এসএসডি। চমৎকার কম্বিনেশন বলা যায়। 

এর পারফর্মেন্স দাম অনুযায়ী ভালো বলা যায়। এতে দ্রুত মাল্টিটাস্কিং, দ্রুতগতির বুস্ট, ফাস্ট ডাটা ট্রান্সফার করতে পারবেন।

ডিসপ্লে

ওয়ালটন ল্যাপটপ টামারিন্ড এক্স৭১০জি (Walton Laptop Tamarind EX710G)-এ ব্যবহার করা হয়েছে ১৪ ইঞ্চি এফএইচডি ডিসপ্লে (৬০ হার্জ আইপিএস ম্যাট এলসিডি ডিসপ্লে)। এতে আরো রয়েছে আই প্রোটেকশন মুড যেটা আপনার চোখকে ডিসপ্লের ক্ষতিকর রশ্নি থেকে রক্ষা করবে।

ওয়ালটন ল্যাপটপ

এই ল্যাপটপের ডিসপ্লে বিভিন্ন এঙ্গেল থেকে দেখতে অসুবিধা হবেনা। এর সাথে আছে চমৎকার কালার ভিউ। ব্যবহারের অভিজ্ঞতা ভালোই হবে বলা যায়। মুভি দেখতেও ভালো ফিল পাবেন।

কানেক্টিভিটি

এর কানেক্টিভিটিও ভালোই দেয়া হয়েছে। যে কানেক্টিভিটিগুলো পাবেন সেগুলো হলো,

  • ইউএসবি ৩.০ (ইউএসবি ৩.১ জেনারেশন ১) টাইপ-সি পোর্ট
  • ইউএসবি ৩.০ (ইউএসবি ৩.১ জেনারেশন ১) টাইপ-এ পোর্ট
  • ছোট ডিসপ্লে পোর্ট
  • এইচডিএমআই আউট পোর্ট (HDMI Out Port)
  • কার্ড রিডার। এক কার্ড রিডারেই ৬ ধরনের মেমোরি ব্যবহার করতে পারবেন।
  • আরজে-৪৫ ল্যান জ্যাক
  • সিকিউরিটি লক স্লট
  • মাইক্রোফোন পোর্ট
  • হেডফোন পোর্ট
  • পাওয়ার বাটন
  • ইউএসআইএম কার্ড রিডার (৪জি এলটিই ইউএসআইএম কার্ড)
  • ডিসি জ্যাক
  • এলইডি ইন্ডিকেটর
  • ওয়াইফাই ৫ ভার্সন (ডুয়াল ব্যান্ড ৮০২.১১)
  • ব্লুটুথ ৫ ভার্সন

দেখা যাচ্ছে কানেক্টিভিটির ক্ষেত্রে ওয়ালটন ল্যাপটপ (Walton Laptop) কোনো কার্পণ্য করেনি। ট্রান্সফার, ব্রাউজিং স্পিড সবদিক দিয়েই চমৎকার পারফর্মেন্স দিবে আশা করা যায়।

কিবোর্ড

বাংলাদেশী পণ্য হওয়ায় ওয়ালটন ল্যাপটপ (Walton Laptop) তাদের কিবোর্ডে ইংরেজির সাথে বাংলা ফন্টও ব্যবহার করেছে। এতে আশা করা যায় অনেকেরই সুবিধা হবে। তবে এক্ষেত্রে আমাদের সাজেশন্স হবে আপনারা এক্সটার্নাল কিবোর্ড ব্যবহার করবেন অবশ্যই। ল্যাপটপের কিবোর্ডগুলো বেশি ব্যবহার করলে নষ্ট হবার সম্ভাবনা থাকে। যত ভালো ল্যাপটপই হোক নষ্ট হয়ে যেতে পারে। তাই ল্যাপটপের অন কিবোর্ড (ল্যাপটপের কিবোর্ড) বন্ধ করে এক্সটার্নাল কিবোর্ড ব্যবহার করবেন।

টোটাল স্পেসিফিকেসন এবং আরো কিছু তথ্য

নিচের টেবিল দেখে এক নজরে পুরো স্পেসিফিকেশন দেখে নিতে পারেন,

টাইটেলস্পেসিফিকেশন
ব্রান্ডওয়ালটন ল্যাপটপ (Walton Laptop) কম্পিউটার
মডেল এক্স৭১০জি (EX710G)
ডিসপ্লে সাইজ এবং ধরণ১৪ ইঞ্চি এবং আইপিএস ডিসপ্লে
গ্রাফিকস কার্ডইন্টেল
গ্রাফিকস মেমোরি৪ জিবি
এসএসডি৫১২ জিবি
এসি এডাপ্টর আছে?হ্যাঁ
প্রসেসর এবং জেনারেশনইন্টেল কোর আই-৭ এবং ১০ম জেনারেশন
র‍্যাম৮ জিবি
হার্ড ডিস্ক১৩৩ জিবি
ক্যামেরা (ফ্রন্ট)১ মেগাপিক্সেল
ব্যাটারি লাইফ৫ ঘন্টা পর্যন্ত

এই ল্যাপটপ নিয়ে কাস্টমার রিভিউ এবং ‘জেনে কিনবো’ টিমের মতামত

ওয়ালটন ল্যাপটপ টামারিন্ড এক্স৭১০জি (Walton Laptop Tamarind EX710G) নিয়ে কাস্টমারদের রিভিউ খুবই ভালো। ৫ এ ৪.৪ রিভিউ নিয়ে খুব ভালো পজিশনে আছে এই ল্যাপটপ। ১১ টি ৫ স্টার, ২ টি ৪ স্টার এর বিপরীতে মাত্র ১ টি ১ স্টার রিভিউ আছে। তাই বলা যায় কাস্টমার স্যাটিসফ্যাকশন ভালোই।

আর আমাদের মতামত হলো এই ল্যাপটপ সবদিক দিয়েই ভালো। তবে ডিসপ্লে নিয়ে আমাদের মতামত হলো এটা আরেকটু ভালো দিলে আরো ভালো হতো। এদিক দিয়ে একটু পিছিয়ে আছে মনে হলো। সাইজটা আরেকটু বড় হলে ভালো হতো। তবে বেশি বড় হলে ল্যাপটপ ক্যারি করতে অসুবিধা হতো হয়তো। তবে একেবারেই মন্দ হয়নি।

তবে মোটামুটি দাম অনুযায়ী ভালো ল্যাপটপ বলা যায়। কিনতে পারেন। দাম অনুযায়ী পারফেক্ট ল্যাপটপ বলা যায়।

পুরো রিভিউ পড়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ।

আমাদের আরো ব্লগ পড়ুন